কুবি ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শিক্ষার্থীর কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে মৌখিকভাবে তাকে সতর্ক করে দিয়েছে কুবি যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেল।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের লিখিত অভিযোগ দেন ওই ছাত্রী। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযোগপত্রে বলেন, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আল আমিন নানা সময়ে তাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন । তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে মান সম্মান ক্ষুন্ন করার হুমকি দিয়েছিলেন তাকে। একই ঘটনা আরও একাধিক শিক্ষার্থীর সাথেও ঘটেছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন ওই শিক্ষার্থী।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) অভিযোগপত্র পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের সদস্য সচিব ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শারমিন রেজোয়ানা বলেন, আল আমিনের বিরুদ্ধে আনিত সব অভিযোগ স্বীকার করেনি সে। কিছু বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছে এবং সে ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজে জড়িত থাকবে না বলে মুচলেকা দিয়েছে। আমরা তাকে মৌখিকভাবে সতর্ক করে ছেড়ে দিয়েছি।

অভিযোগকারী শিক্ষার্থী বলেন, গবেষণায় সহায়তা ও নানরকম সুযোগ সুবিধার প্রলোভন দেখিয়ে আপত্তিকর প্রস্তাব দিতেন তিনি। তার কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আমাকে নানভাবে হেনস্তা করে সে। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করি।

তবে অভিযোগের বিষয় অস্বীকার করে মোহাম্মদ আল আমিন বলেন, এসব মিথ্যা এবং বানোয়াট। আমি ষড়যন্ত্র এবং প্রতিহিংসার শিকার হয়েছি। একটি মহল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমার ক্যারিয়ার নষ্ট করতে চাচ্ছে।

কুবি ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ

কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত শিক্ষার্থীর কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে মৌখিকভাবে তাকে সতর্ক করে দিয়েছে কুবি যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেল।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের লিখিত অভিযোগ দেন ওই ছাত্রী। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযোগপত্রে বলেন, ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আল আমিন নানা সময়ে তাকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন । তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে মান সম্মান ক্ষুন্ন করার হুমকি দিয়েছিলেন তাকে। একই ঘটনা আরও একাধিক শিক্ষার্থীর সাথেও ঘটেছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন ওই শিক্ষার্থী।

শুক্রবার (৪ নভেম্বর) অভিযোগপত্র পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলের সদস্য সচিব ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শারমিন রেজোয়ানা বলেন, আল আমিনের বিরুদ্ধে আনিত সব অভিযোগ স্বীকার করেনি সে। কিছু বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছে এবং সে ভবিষ্যতে এ ধরনের কাজে জড়িত থাকবে না বলে মুচলেকা দিয়েছে। আমরা তাকে মৌখিকভাবে সতর্ক করে ছেড়ে দিয়েছি।

অভিযোগকারী শিক্ষার্থী বলেন, গবেষণায় সহায়তা ও নানরকম সুযোগ সুবিধার প্রলোভন দেখিয়ে আপত্তিকর প্রস্তাব দিতেন তিনি। তার কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আমাকে নানভাবে হেনস্তা করে সে। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ সেলে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করি।

তবে অভিযোগের বিষয় অস্বীকার করে মোহাম্মদ আল আমিন বলেন, এসব মিথ্যা এবং বানোয়াট। আমি ষড়যন্ত্র এবং প্রতিহিংসার শিকার হয়েছি। একটি মহল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে আমার ক্যারিয়ার নষ্ট করতে চাচ্ছে।