ব্যতিক্রমী সংগ্রহ নিয়ে প্রদর্শনী

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক

ডাকটিকিট, ব্যাংক নোট ও ধাতব মুদ্রা সংগ্রাহক ড. কামরুজ্জামান কায়সার, মো. রবিউল ইসলাম ও খন্দকার শাকিল হকের শখের সংগ্রহ দিয়ে জাতীয় জাদুঘরে চলছে তিন দিনের ব্যতিক্রমী প্রদর্শনী। ডাকটিকিট, উদ্বোধনী স্মারক খাম, স্যুভেনির শিট, প্রাচীন ও আধুনিক মুদ্রা, সোনা, রুপা, তামাসহ বিভিন্ন ধাতব মুদ্রা ইত্যাদি দুর্লভ সংগ্রহ দিয়ে সাজানো হয়েছে জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারি। শুক্রবার বিকালে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। সঙ্গে ছিলেন জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. কামরুজ্জামান ও গ্লোবাল টেলিভিশনের সিইও সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা প্রমুখ।

প্রদর্শনীতে বিশ্বের ২ শতাধিক দেশের দুর্লভ ব্যাংক নোট ও দেশলাই স্থান পেয়েছে। উপমহাদেশের বেঙ্গল সুলতান, দিল্লির সুলতান, মোগল সম্রাটদের ধাতব মুদ্রাসহ আড়াই  হাজার বছর আগের মুদ্রার দুর্লভ সব সংগ্রহ রয়েছে এ প্রদর্শনীতে। প্রদর্শনীতে স্থান পাওয়া ব্যাংক নোটের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তান আমলের ব্যাংক নোট, (১৯৪৭-১৯৭২) ব্রিটিশ আমলের ব্যাংক নোট, বিশেষ সিরিয়াল নম্বরের বাংলাদেশের ব্যাংক নোট, দেশের ত্রুটিযুক্ত ব্যাংক নোট, দেশের সব ডিজাইনের ব্যাংক নোট, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, কানাডা, কুইন এলিজাবেথ স্মারক নোট, ভার্টিকেল নোট, হাইব্রিড নোট, লোয়ার ডিনোমিনেশন, হায়ার ডিনোমিনেশন, পলিমার নোট, লিজেন্ডারি স্টেটসম্যান নোট, প্যাসিফিক আইল্যান্ড কান্ট্রিজের নোট। ধাতব মুদ্রার মধ্যে লিবিয়া, বারবাডোজ, মিসর, যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, ভারত, সেনেগাল, পানামা, নেপাল, মালদ্বীপ, মঙ্গোলিয়ার ধাতব মুদ্রা। পাশাপাশি স্থান পেয়েছে ৬৫টি বিলুপ্ত দেশের মুদ্রা, ভারতীয় রাজতন্ত্র যুগের প্রাদেশিক মুদ্রা, স্বাধীন রাজ্যের মুদ্রা, বাংলাদেশের মুদ্রা, পর্তুগিজ-ভারতীয় মুদ্রা, ব্রিটিশ-ভারতীয় মুদ্রা, দিল্লির সুলতানি আমলের মুদ্রা, বাংলার সুলতানি আমলের মুদ্রা। মোগল আমলের মুদ্রার মধ্যে রয়েছে- জহিরুদ্দিন মুহাম্মদ বাবর, নাসিরুদ্দিন হুমায়ুন, কামরান মির্জা, জালালুদ্দিন আকবর, নুরুদ্দিন জাহাঙ্গীর, নুরজাহান, শিহাবুদ্দিন শাহজাহানের শাসনামলের মুদ্রা। আরও রয়েছে গ্রিক-ভারতীয় মুদ্রা, গৌড়ের রাজা শশাঙ্কের মুদ্রা, মগধ জনপদের মুদ্রা, মৌর্য শাসক অশোকের মুদ্রা, গুপ্ত শাসনামলের সোনা, রূপা ও তামার মুদ্রা, প্রাচীন বাংলার রাজার স্বর্ণমুদ্রা চান্দ্র সাম্রাজ্য, হরিকেল রাজ্য, শাকা, বঙ্গ ও সমতট জনপদের মুদ্রা।

শখের সংগ্রহ দেখতে ব্যক্তিগত ও সপরিবার রাজধানীর দূরদূরান্ত থেকে প্রতিদিন ছুটে আসছেন শিল্পপ্রেমীরা। আজ শেষ হবে এ প্রদর্শনী।

ব্যতিক্রমী সংগ্রহ নিয়ে প্রদর্শনী

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক

ডাকটিকিট, ব্যাংক নোট ও ধাতব মুদ্রা সংগ্রাহক ড. কামরুজ্জামান কায়সার, মো. রবিউল ইসলাম ও খন্দকার শাকিল হকের শখের সংগ্রহ দিয়ে জাতীয় জাদুঘরে চলছে তিন দিনের ব্যতিক্রমী প্রদর্শনী। ডাকটিকিট, উদ্বোধনী স্মারক খাম, স্যুভেনির শিট, প্রাচীন ও আধুনিক মুদ্রা, সোনা, রুপা, তামাসহ বিভিন্ন ধাতব মুদ্রা ইত্যাদি দুর্লভ সংগ্রহ দিয়ে সাজানো হয়েছে জাদুঘরের নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারি। শুক্রবার বিকালে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। সঙ্গে ছিলেন জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. কামরুজ্জামান ও গ্লোবাল টেলিভিশনের সিইও সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা প্রমুখ।

প্রদর্শনীতে বিশ্বের ২ শতাধিক দেশের দুর্লভ ব্যাংক নোট ও দেশলাই স্থান পেয়েছে। উপমহাদেশের বেঙ্গল সুলতান, দিল্লির সুলতান, মোগল সম্রাটদের ধাতব মুদ্রাসহ আড়াই  হাজার বছর আগের মুদ্রার দুর্লভ সব সংগ্রহ রয়েছে এ প্রদর্শনীতে। প্রদর্শনীতে স্থান পাওয়া ব্যাংক নোটের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তান আমলের ব্যাংক নোট, (১৯৪৭-১৯৭২) ব্রিটিশ আমলের ব্যাংক নোট, বিশেষ সিরিয়াল নম্বরের বাংলাদেশের ব্যাংক নোট, দেশের ত্রুটিযুক্ত ব্যাংক নোট, দেশের সব ডিজাইনের ব্যাংক নোট, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, কানাডা, কুইন এলিজাবেথ স্মারক নোট, ভার্টিকেল নোট, হাইব্রিড নোট, লোয়ার ডিনোমিনেশন, হায়ার ডিনোমিনেশন, পলিমার নোট, লিজেন্ডারি স্টেটসম্যান নোট, প্যাসিফিক আইল্যান্ড কান্ট্রিজের নোট। ধাতব মুদ্রার মধ্যে লিবিয়া, বারবাডোজ, মিসর, যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, ভারত, সেনেগাল, পানামা, নেপাল, মালদ্বীপ, মঙ্গোলিয়ার ধাতব মুদ্রা। পাশাপাশি স্থান পেয়েছে ৬৫টি বিলুপ্ত দেশের মুদ্রা, ভারতীয় রাজতন্ত্র যুগের প্রাদেশিক মুদ্রা, স্বাধীন রাজ্যের মুদ্রা, বাংলাদেশের মুদ্রা, পর্তুগিজ-ভারতীয় মুদ্রা, ব্রিটিশ-ভারতীয় মুদ্রা, দিল্লির সুলতানি আমলের মুদ্রা, বাংলার সুলতানি আমলের মুদ্রা। মোগল আমলের মুদ্রার মধ্যে রয়েছে- জহিরুদ্দিন মুহাম্মদ বাবর, নাসিরুদ্দিন হুমায়ুন, কামরান মির্জা, জালালুদ্দিন আকবর, নুরুদ্দিন জাহাঙ্গীর, নুরজাহান, শিহাবুদ্দিন শাহজাহানের শাসনামলের মুদ্রা। আরও রয়েছে গ্রিক-ভারতীয় মুদ্রা, গৌড়ের রাজা শশাঙ্কের মুদ্রা, মগধ জনপদের মুদ্রা, মৌর্য শাসক অশোকের মুদ্রা, গুপ্ত শাসনামলের সোনা, রূপা ও তামার মুদ্রা, প্রাচীন বাংলার রাজার স্বর্ণমুদ্রা চান্দ্র সাম্রাজ্য, হরিকেল রাজ্য, শাকা, বঙ্গ ও সমতট জনপদের মুদ্রা।

শখের সংগ্রহ দেখতে ব্যক্তিগত ও সপরিবার রাজধানীর দূরদূরান্ত থেকে প্রতিদিন ছুটে আসছেন শিল্পপ্রেমীরা। আজ শেষ হবে এ প্রদর্শনী।